Homeসমসাময়িক গল্প

মডার্ন সাজসজ্জার ভয়াবহতা

মডার্ন সাজসজ্জার ভয়াবহতা
Like Tweet Pin it Share Share Email

আমাদের দেশের তরুণীদের বিশেষ একটি বদ অভ্যাস রয়েছে । যা হল অবৈধ মডার্ন সাজসজ্জা, যার কারণে দুনিয়াতেই অনেক লান্ঞ্ছনা ভোগ করতে হয় । এর অনেক নজির রয়েছে । বেপর্দা ও অবৈধ সাজের কারণে অনেক তরুণী রাস্তা ঘাটে ধষর্ণ , নির্যাতন ও অপহরনের শিকার হচ্ছে । পর্দা করা আল্লাহ তায়ালার  মহান হুকুম । এই মহান হুকুম না মানার কারণে দুনিয়াতে এই সব লান্ঞ্ছনা গজব দেয়ার পরও তাদের জন্য আখেরাতে  রয়েছে  ভীষণ আজাব ও কঠিন শাস্তি । আল্লাহপাক তার বান্দা- বান্দীদেরকে গুনাহ থেকে ফিরিয়ে আনার জন্য বিভিন্ন সময় অবমাননাকর ঘটনা ঘটিয়ে থাকেন । যাতে দুনিয়ার মানুষ শিক্ষা নিয়ে গুনাহ থেকে বেঁচে থাকতে পারে । এরকমই একটি ঘটনা তুলে ধরছি পাঠকের সামনে । যেন আমাদের মা-বোনেরা শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে ।

এই ভয়ংকর ঘটনা ঘটেছিল পাকিস্তানের এক গোরস্তানে । একজন লোক কবরস্তানের পাশ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিল । এমন সময় হঠাৎ একটি আওয়াজ শুনে সে থমকে দাঁড়ায় । দাঁড়িয়ে এদিক সেদিক লক্ষ্য করতে থাকে কোথা থেকে আওয়াজটি আসছে । লক্ষ্য করে শুনল যে পাশের  কবরস্তানের একটি কবর থেকে আওয়াজ আসছে – ‘‘আমাকে বাঁচাও, আমি জীবিত’’। লোকটা বুঝতে পারল যে, এইটা নিশ্চয়ই কোন মেয়েলী কন্ঠ ।

কিন্তু সে বিশ্বাস করতে পারছে না , কারণ কবরে মৃত মানুষের কথাতো দুনিয়ার মানুষ শুনে না । তবে আওয়াজটা ঘন ঘন আসার কারণে সে ভয় পায় । তখন ঘটনাকে পরখ করার জন্য দৌড়ে বাড়িতে চলে যায়। বাড়ি থেকে কয়েকজন সাহসী লোকদের নিয়ে ঐ কবরের কাছে আসে তখনো সবাই আওয়াজটি শুনতে পেল। তখন তারা সবাই মিলে আলেম-উলামাদের কাছে পরামর্শ চাইল। আলেমদের থেকে অনুমতি পেয়ে তারা ঐ কবর খুঁড়তে লাগল । কবরটি খুঁড়ে দেখে সবাই আশ্চর্য হল এবং কেউ কেউ ভয়ও পেল । এখান থেকে সবাই দূরে সরে পড়ল । কারণ তারা দেখল একটি উলঙ্গ মেয়ে সেখানে আছে । মেয়েটা তখন বলল-আমাকে একটা কাপড় দাও । তখন লোকেরা একটি কাপড় এনে দূর থেকে কবরের ভেতর ছুঁড়ে মারল । মেয়েটা কাপড় পরিধান করে কবর থেকে উঠে এক দৌড়ে বাড়িতে গিয়ে তার রুমে প্রবেশ করে দরজা বন্ধ করে দিল ।

তখন লোকেরা দরজা খুলতে বললে মেয়েটি বলল- না তোমরা আমাকে দেখতে পারবে না , আমার চেহারা খুবই ভয়ংকর । তোমরা দেখলে ভয়ে অজ্ঞান হয়ে যাবে । তখন সেই কথা শুনে অনেকে পালিয়ে গেল । কিন্তু কিছুসংখ্যক সাহসী মানুষ বলল- আমরা ভয় পাব না । তুমি দরজা খোল । তখন মেয়েটি দরজা খুলল । তারা ভেতরে প্রবেশ করে দেখলো- মেয়ের সমস্ত শরীর ঢেকে আছে । তারা মেয়েটিকে তার হাল সম্পর্কে জিজ্ঞেস করল- তুমি তো কিছুদিন আগে মারা গেলে এখন আবার তুমি জীবিত ?

ইত্যাদি প্রশ্ন করতে লাগল । মেয়েটি কোন প্রতিউত্তর না করে প্রথমে তার মুখমন্ডল বের করল। দেখা গেলো মেয়েটির মুখে কোন গোশত নেই এবং মাথায় কোন চুল ও চামড়া নেই । ভয়ংকর তার চেহারা । লোকজন এ দৃশ্য দেখে ঘাবড়ে গেলো , তবে সাহস হারায়নি ।

তোমার চেহারার এ করুণ অবস্থা কেন ?

লোকেরা জিজ্ঞেস করার পর মেয়েটি বলর- বেপর্দা ভাবে চলাফেরার কারণে আমার এ শাস্তি । আমি মাথার চুলে শ্যাম্পু ব্যবহার করে মানুষকে আমার দিকে আকৃষ্ট করার জন্য ঘর থেকে বের হতাম । আমার এই পাপের কারণে আজাবের ফেরেশতাগণ আমার মাথার চুল টেনে ছিঁড়ে ফেলছেন এবং মাথার চামড়া গুলো তুলে ফেলছেন । আর আমি ঠোটে লিপিস্টিক দিয়ে বেপর্দায় রাস্তায় বের হতাম । সেই জন্য আমার মুখের এই অবস্থা । এক কথায় দুনিয়াতে আল্ট্রা মডার্ন সাজসজ্জার কারণে আমার এই আজাব ।

এরপর লোকজন লক্ষ্য করে দেখল মেয়েটির হাতের  ও পায়ের আঙ্গুলগুলো নেই । জিজ্ঞাসা করা হলে বলল- আমি হাত ও পায়ে আলতা ও নখ পালিশ ব্যবহার করে বের হতাম । সেই জন্য দোযখের ফেরেশতাগণ হাতের ও পায়ের  আঙ্গুলগুলো ছিঁড়ে ফেলেছেন । এতটুকু বলে মেয়েটি আবার মারা

গেল । স্থানীয় লোকেরা মিলে আবার তাকে কবর দিয়ে দেয় ।

দৃষ্টি আকষর্ণ :

প্রিয় পাঠক ! তখন বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় এ খবর ছাপা হয়েছে এবং অনেক মা-বোনের ভাগ্যে হেদায়াত মিলেছে ও পরিবর্তন ঘটেছে । আমাদের মা-বোনরা কি পারবে না এই ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজের জীবনকে পাল্টিয়ে দিতে ।

তরুনী বোনদের প্রতি বিশেষ দৃষ্টি আকষর্ণ এজন্য যে, তাদের মাঝেই বেশি অবৈধ বেপর্দা চলাফেরা ও মডার্ন সাজসজ্জা দেখা যায় । বোন, আপনাদেরকে বলছি-দেখলেন তো কবরের কি ভয়ানক শাস্তি । শুধু এখানেই শেষ নয় , আরো শাস্তি আছে । তাই তরুনী বোন আপনারা দয়া করে বেপর্দা চলাফেরা বজর্ন করুন । পূর্ণরূপে শরীয়ত মুতাবেক পর্দা গ্রহণ করুন ।

Comments (0)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *