Main Menu

কুরআন-দাসি এবং হতবাক করা আজাদি

 

 

 

 

 

 

 

সাহাবা যুগের তুলনা সাহাবা যুগ। এ পৃথিবী এমন স্ন্দুর যুগ দ্বিতীয় বার দেখেনি। দেখবেও না আর। ইসলামের সোনালী যুগ বলা হয় সে যুগকে। তাদের ঈমানি শক্তি, চরিত্র মাধুরী সবই অকল্পনীয় সুন্দর। সে যুগের একটি ঘটনা।

রাসুল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রিয় নাতি হযরত হুসাইন রা. ঘরে এলেন। তিনি আসার পর একজন মেহমান এলো। দাসিকে ডেকে বললেন, যাও, মেহমানে জন্য খাবার নিয়ে এসো। ঘরে মিষ্টিজাতীয় খাবার ছিল। দাসি সেগুলো গরম করে পাত্রে ঢেলে যখন দরজার কাছে এলো, আচমকা দরজার চৈাখাটের সাথে  হোঁচট খেয়ে পড়ে গেল। খাবারের কিছু ফোঁটা হুসাইন রা.-এর পায়ে পড়ল। গরম খাবার শরীরের যেখানে লাগে জ্বলতে থাকে। তিনি দাসির দিকে রেগে তাকালেন।

দাসি বুঝতে পারলে তার মনিব তার উপর ভীষণ রেগে আছেন। আর সে হযরত হুসাইন রা. এর চরিত্র ভালো করেই জানতো। সে বলে উঠল,

والكـــاظمين الغيظ আয়াতটি মুমিনের শানে ইরশাদ হয়েছে। এখানে মুমিনদের বলা হয়েছে, তারা যেন তাদের তাদের রাগ সংবরন করে। ক্রোধ থামিয়ে ফেলে। তিনি বললেন, আমি আমার রাগ সংবরন করলাম।

দাসি আবার বলল, والعافين عن الناس এর অর্থ হলো, তারা মানুষকে ক্ষমা করে দেয়। তিনি বললেন, আমি তোমায় ক্ষমা করে দিলাম।

দাসি আবার বলল,  والله يحب المحسنينযার অর্থ,আল্লাহ তায়ালা নেক বান্দাদের পছন্দ করেন। তিনি বললেন, যাও আমি তোমায় আল্লাহ তায়ালার সন্তুুষ্টির জন্য আজাদ করে দিলাম।

এ হল সাহাবা চরিত্র। আসুন, আমরাও কুরআনে বর্ণিত মুমিনগুনে গুনান্বিত হই। সাহাবা আদর্শে আদর্শবান হই।

 

 

 

 

 

Comments

comments






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Facebook

Likebox Slider Pro for WordPress